সাধু ও চলিত রীতির মিশ্রণ দূষণীয়; নিন্দনীয়ও বটে


ভাষায় বামুন শূদ্র: গুরুচণ্ডালি বলে কিছু নেই
বেশে জেঁকে বসা এক বসা উপদ্রব হল সাধুরীতি ও চলিতরীতি। সাধুর বিপরীত রীতিটি অসাধু না হয়ে চলিত কি করে হয় সে হিসাব নাই চাইলাম। আজ বরং হিসাব করি চলিতর বিপরীত রীতিটি অচলিত না হয়ে সাধু কেন? সাধু ও চলিতের মিশ্রণ দূষণীয় কেন?

জুতা জিনিসটা কী তা জানেন না এমন কেউ বঙ্গ অঞ্চলে আছে বলে মনে হয় না। তবে এমন অনেক বঙ্গভাষী আছেন যারা জানেনা যে ভাষাবিদদের মতে আমরা অসাধু হলেও আমাদের জুতা সাধু। কিন্তু  আমাদের মতে আমাদের জুতা চলিত। অন্তত যখন জুতা পায়ে হেটে চলি সেই জুতা অবশ্যই চলিত; কেবল চলিত নহে; হঁটিতও। কিন্তু আমাদের সাধুরা যে জুতোর কথা বলছেন সেইটা তাহলে কী
!

এখন প্রশ্ন হতে পারে বামুনের মুখ (পা থেকে অবশ্যই না) থেকে "জুতা" আমরা কেড়ে নিয়েছি নাকি আমাদের মুখ থেকে বামুনরা; সেটার অবশ্য হদিস আমি করতে পারিনি। তবে দ্বিতীয়টার সম্ভাবনা কম। পা থেকেই নিক বা মুখ থেকেই নিক, আমাদের জুতা তো তাদের পায়ে বা মুখে কোথাও ফিট হবে না। ঘটনাটা বরং এমনই হয়তো সাধুদের জুতা আমরা অসাধুরা কেড়ে নিয়েছি। সে জুতো চুরির দায়েই হয়তো তাহারা  সাধু আর আমরা অসাধু। এই যে তারা শয়ে শয়ে বইয়ের ভেতর চিৎকার করে বলছে "তোমরা যা পরো তা জুতা নয় জুতো", সে চিৎকার কী আমরা শুনতে পাই। এই যে প্রতিবার  অবশ্য তারা প্রতিবারই আমাদের অনুরো

এইযে তুলা আর তুলো, কুলা আর কুলো, মুলা আরো মুলো কীর্তন
সে কীর্তনে
পদ সাধু, পা চলিত এই ব্যাপারে আমি সর্বাধিক দ্বিমত। ব্রাহ্মণের পদ সাধু কিন্তু শূদ্রের পদ চলিত তা আমি মানতে নারাজ। ময়মনসিংহের ছেলে আমি, এখানে পদ আর পা দুটাই সমান সাধু অথবা সমান অচলিত। আমাদের ঠ্যাং কী সাধু না চলিত? (অবশ্য বর্তমানে অনেক মমিসিংগাও ঠেং ছেড়ে পা লাগিয়ে নিয়েছেন।) জুতার যুক্তিতে এটাও চলিত।

সাধু হস্তের অসাধু হাত, কিন্তু আমাদের আত আর ডেনার কী হবে? নিত্যনৈমিত্তিক হাতের যে উল্টোপাল্ট
 ব্যবহার হয় সে হিসাবে হাত অসাধু বা চলিত। আমাদের ডেনা বা আতও। 

এই যে বিভিন্ন পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের বিসমিল্লাতেই লেখা থাকে " সাধু ও চলিত মিশ্রণ গ্রহণযোগ্য নয়"। তবে প্রশ্ন কর্তারা অবশ্য এই দেখটি খেয়াল করেন নাই  হলে বসা অধিকাংশ পরিক্ষার্থীর জুতাই সাধু, তাদের জুতা চলিত না। কেউ কেউ মানে যারা পায়ে হেঁটে এসেছে তাদের কথা বাদ। বাসে চড়া জুতা তো সাধুই। এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে বাসের চালক যে জুতা পরেন সেটা চলিত জুতা নহে, কারণ এই জুতা চলেনা, বরং চালায়। তাই এটিকে চালক জুতা বলতে পারেন। 

তাঁরা শব্দে চন্দ্রবিন্দু হবে নাকি হবে না এই নিয়ে আমাকে প্রতিনিয়ত গণ্ডগোলের মধ্য দিয়ে যায়। আমার বট যখন উইকিপিডিয়ায় বানান সংশোধনে হাত দেয় তখন এই প্রসঙ্গটি বারবার আসে। তাঁরা আর তারার মধ্যে পার্থক্য কী! তো অনেকের যুক্তি হলো তাঁরার চন্দ্রবিন্দু নাকি সম্মানজনক। কিন্তু আমার কাছে মনে হয় উল্টোটা তারার উপর চন্দ্রবিন্দু বসবে কেন, বসলে তারাবিন্দু বসতে পারে! এভাবে নক্ষত্রের ঘাড়ে উপগ্রহের চড়ে বসাটাই অসম্মানজনক। 

মাঝেমধ্যে অনেকেই জিগায় যে চাঁদে চন্দ্রবিন্দুটা কেন? ভাষাবিদরা সংস্কৃতের দোহাই দেন, তবে আমার ছোট মস্তিষ্কে যা ধরে তা হল শব্দটা চাঁদ বলেই তার উপর চন্দ্রবিন্দু ! তো এখন আবার প্রশ্ন উঠতে পারে তাহলে সূর্যতে সৌরবিন্দু কই! এই লন সৌ☀রবিন্দু, আমার কীবোর্ড বেশ খাটো হওয়ায় বিন্দুটাকে উপরে তুলতে পারিনি।